কুড়িগ্রামের উলিপুরে দুই হত্যাকান্ডের ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন পুলিশ সুপার মোহাস্মদ মহিবুল ইসলাম খান বিপিএম।
জানা গেছে, উপজেলার ধামশ্রেনী ইউনিয়নের যাদুপোদ্দার গ্রামে গত ১০মে ক্রিকেট খেলাকে কেন্দ্র করে,পূর্ব শত্রুতার জের ধরে প্রতিপক্ষ শাহাবউদ্দিন মাষ্টারের লোকজন পিটিয়ে হত্যা করে প্রতিবেশী মুকুল মিয়াকে।এ ঘটনায় জড়িত ৩জনকে আটক করে জেল হাজতে পাঠায় পুলিশ।
অপরদিকে উপজেলার উপজেলার দূর্গাপুর ইউনিয়নের অর্জুনডারা গোড়াই মুন্সিপাড়া গ্রামের কাচুয়া’র(৬৪) বাছুর গরু কয়েকদিন পূর্বে প্রতিবেশি আঃ মজিদের পুত্র আইনুল ইসলামের (৩৫)’র জমিতে নেমে ধান খায়। এসময় দুই পক্ষের মধ্যে কথাকাটি হয়।পরে বৃহস্পতিবার (২৮ মে) সন্ধায় ঘটনাটি মিমাংসার জন্য শালিস বৈঠক বসলে আইনুলের পরিবার মিমাংসা না মেনে উঠে যায়।পরে কাচুয়ার পরিবারের পক্ষ থেকে ঘরের চালে আম পড়া নিয়ে অভিযোগ তুলে আইনুলের সাথে ফের কথাকাটি শুরু হয়। এরই এক পর্যায়ে দু’পক্ষের সংঘর্ষে কাচুয়া, তার পুত্র সাদেকুল ইসলাম (৩৫), সিদ্দিকুর রহমান (৩১) এবং এনামুল (৪৫) ও মতিউর রহমান মন্ডল (৩৮) গুরুত্বর আহত হয়।স্থানীয়া আহতদের উদ্ধার করে কুড়িগ্রাম সদর হাতপাতালে নেয়ার পথে সিদ্দিকুর রহমানের মৃত্যু হয়।এঘটনায় জড়িত ১জনকে আটক করে জেল হাজতে পাঠিয়েছে পুলিশ।
শনিবার(৩০ মে) দুপুরে এ দুটি হত্যাকান্ডের ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন পুলিশ সুপার মহিবুল ইসলাম খান বিপিএম।
এসময় পুলিশ সুপার বলেন, হত্যাকান্ডের ঘটনায় জড়িতদের কাউকে ছাড় দেয়া হবে না।পুলিশ সুষ্ঠুভাবে গুরুত্বসহকারে মামলা দুটি তদন্ত করছে।
তিনি আরো বলেন,ছোটখাট বিবাদ থেকে যাতে ভবিষ্যতে আর কোন হত্যাকান্ড না ঘটে সে ব্যাপারে প্রতিটি থানায় পুলিশিং কার্যক্রম জোড়দার করা হবে। ইউনিয়নের দায়িত্বে থাকা সংশ্লিষ্ট এসআই ও এএসআইদের মোবাইল নম্বর ব্যাপকভাবে প্রচারের জন্য জেলার সকল ওসিকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। ইতিমধ্যে বিট পুলিশিং কার্যক্রম ইউনিয়ন ভিত্তিক জোড়দার করার লক্ষে জেলা পুলিশ থেকে মনিটরিং করার ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।
Leave your comments